আমাদের ব্লগ

উইন্ডমিল
সভ্যতার বিকাশে মুসলমানদের গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার উইন্ডমিল বা বায়ুকল
সভ্যতার বিকাশে মুসলমানদের গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার উইন্ডমিল বা বায়ুকল।
৭ম শতাদ্বীতে পারস্যের খলিফার জন্যে উইন্ডমিল বা বায়ুকল আবিষ্কার করা হয় । শস্য চূর্ণ এবং সেচের জন্যে পানি উত্তেলনে তা ব্যাবহার করা হতে থাকে । এ বিষয়টা পার্সিয়ান ভূগোলবিদ Estakhri এর বর্ণনা থেকে পাওয়া যায় । তিনি নবম শতাব্দীতে খোরাসানের (পূর্ব ইরান এবং পশ্চিম আফগানিস্তান) বায়ুকলগুলি পরিচালনা করতেন ।
গ্রীষ্মকালে পানির উৎস গুলো শুকিয়ে গেলে আরব দেশের বিশাল মরুভূমিতে শক্তির একমাত্র মাধ্যম হয়ে দাঁড়াতো বাতাস । কয়েক মাস পযন্ত একদিক থেকে অন্যদিকে দ্রুত বেগে বাতাস প্রবাহিত হতো । এই বাতাসের শক্তিকে কাজে লাগিয়ে উইন্ডমিল সচল থাকতো ।
তৎকালীন প্রতিটি উইন্ডমিল বা বায়ুকলে কাপড় অথবা খেজুর পাতায় আচ্ছাদিত পাল থাকতো ৬টি কিংবা ১২টি । ইউরোপে বায়ুকল চালু হওয়ার ৫শ বছর আগে থেকে আরবে বায়ুকল আবিষ্কারও ব্যাবহৃত হতে থাকে ।
৭ম শতাদ্বীতে মুসলমানদের দ্বারা আবিষ্কার করা উইন্ডমিল বা বায়ুকল খুব দ্রুত চীন, ভারত এবং ইউরোপে জনপ্রিয়তা লাভ করে । এরই ধারাবাহিকতায় উইন্ডমিলের উন্নত মডেল তৈরি হতে থাকে । দুটি দেশে সবচাইতে বেশী উইন্ডমিল ছিলো সেগুলো হলো ইংল্যান্ড এবং নেদারল্যান্ড । অন্যান্য ইউরোপীয় অনেক দেশ মুসলমানদের আবিষ্কার করা উইন্ডমিলে উপযোগীতা লাভ করতে থাকে । নেদারল্যান্ডে এত বেশী উইন্ডমিল ছিলো যে তাদের প্রায় প্রতিটি শিল্প কয়েক শতাদ্বী ধরে টিকে ছিলো উইন্ডমিলের সুবিধা গ্রহন করে ।
তথ্যসূত্র:
  1. • Shepherd, Dennis G. (December 1990). “Historical development of the windmill”. N
    ASA Contractor Report. Cornell University (4337)
  2. • . Wailes, R. Horizontal Windmills. London, Transactions of the Newcomen Society vol. XL 1967–68
  3. •  Klaus Ferdinand, “The Horizontal Windmills of Western Afghanistan,” Folk 5, 1963, .. Ahmad Y Hassan, Donald Routledge Hill (1986). Islamic Technology: An illustrated history, Cambridge University Press. ISBN 0-521-42239-6.
  4. •  Jump up to:a b Lucas, Adam (2006), Wind, Water, Work: Ancient and Medieval Milling Technology, Brill Publishers, , ISBN 90-04-14649-0
  5. •  Dietrich Lohrmann, “Von der östlichen zur westlichen Windmühle”, Archiv für Kulturgeschichte, Vol. 77, Issue 1 (1995),